মার্কিন নৌবাহিনী

মার্কিন নৌবাহিনী (ইংরেজি: United States Navy) হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সশস্ত্র বাহিনীর একটি শাখা, যা নৌ-যুদ্ধের জন্য বিশেষভাবে গঠন করা হয়েছে। এটি যুক্তরাষ্ট্রের সাতটি ইউনিফর্মড সার্ভিসের একটি। আগস্ট, ২০১০ পর্যন্ত প্রাপ্ত পরিসংখ্যান অনুযায়ী এই বাহিনীর মোট কর্মরত সদস্য সংখ্যা ৩,৩০,৭২৯ জন। এছাড়াও এই বাহিনীর আরও ১,০২,৯২৩ জন সংরক্ষিত সদস্য রয়েছে। বর্তমানে এই বাহিনী সর্বমোট ২৮৯টি জাহাজ এবং ৩,৭০০টিরও বেশি যুদ্ধবিমানহেলিকপ্টার পরিচালনা করছে।[2] মার্কিন নৌবাহিনী বিশ্বের সর্ববৃহৎ নৌবাহিনীটন এককে এর যুদ্ধজাহাজগুলোর সর্বমোট ধারণক্ষমতা, পরবর্তী ১৩ টি দেশের নৌবাহিনীর সর্বমোট ধারণক্ষমতার চেয়েও বেশি।[3][4] বিশ্বের সর্ববৃহৎ বিমানবাহী নৌবহর এই বাহিনী পরিচালনা করে। বর্তমানে এই বহরে মোট ১১টি বিমানবাহী রণতরী রয়েছে। এছাড়াও আরও একটি রণতরী নির্মীয়মাণ।

মার্কিন নৌবাহিনী
মার্কিন নৌবাহিনীর সীলমোহর
সক্রিয়১৩ অক্টোবর, ১৭৭৫[1]–বর্তমান
দেশমার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
শাখানৌবাহিনী
আকার৩৩৬৯৭৮ জন সামরিক সদস্য
২৭৯৪৭১ জন বেসামরিক সদস্য
৪৮০টি জাহাজ
৩৯০০+ যুদ্ধবিমান ও হেলিকপ্টার
অংশীদারনৌবাহিনী বিভাগ
সদরদপ্তরপেন্টাগণ
নীতিবাক্যসর্বদাই সাহসী ("Semper Fortis") (দাপ্তরিক)
রং     নীল,      স্বর্ণ
কুচকাত্তয়াজঅ্যাংকরস অ্যাওয়েহ
যুদ্ধসমূহ
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা যুদ্ধ
কুয়েসি যুদ্ধ
বারবেরি যুদ্ধ
১৮১২-এর যুদ্ধ
মেক্সিকান-আমেরিকান যুদ্ধ
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গৃহযুদ্ধ
স্পেনীয়-মার্কিন যুদ্ধ
প্রথম বিশ্বযুদ্ধ
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ
কোরীয় যুদ্ধ
ভিয়েতনাম যুদ্ধ
উপসাগরীয় যুদ্ধ
অপারেশন অ্যালায়েড ফোর্সেস
কসভো যুদ্ধ
আফগানিস্তান যুদ্ধ
ইরাক যুদ্ধ
সোমালিয়ার জলদস্যুবিরোধী অভিযান
সজ্জা
প্রেসিডেন্সিয়াল ইউনিট সাইটেশন

নেভি ইউনিট সাইটেশন

মেরিটোরিয়াস ইউনিট কমেন্ডেশন
কমান্ডার
নৌপ্রধানঅ্যাডমিরাল গ্যারি রুগহেড
উপ-নৌপ্রধানঅ্যাডমিরাল জোনাথন ডব্লিউ. গ্রিনার্ট
মাস্টার চিফ পেটি অফিসারএমসিপিওএন (এসএস/এসডব্লিউ) রিক ডি. ওয়েস্ট
বিমানবহর
আক্রমণএফ/এ-১৮এ/বি/সি/ডি, এফ/এ-১৮ই/এফ
বৈদ্যুতিক যুদ্ধই-২সি, ইপি-৩ই, ই-৬, ইএ-৬বি, ইএ-১৮জি
জঙ্গী বিমানএফ/এ-১৮এ/বি/সি/ডি, এফ/এ-১৮ই/এফ
হেলিকপ্টারইউএইচ-১, এসএইচ-৩, সিএইচ-৫৩ডি, এমএইচ-৫৩ই, এসএইচ-৬০ বি/এফ, এইচএইচ-৬০ এইচ, এমএইচ-৬০আর/এস
প্রহরী বিমানপি-৩, পি-৮
গোয়েন্দা বিমানআরকিউ-২
প্রশিক্ষণ বিমানএফ-৫, এফ-১৬এন, টি-২সি, টি-৬, টি-৩৪, টি-৩৯, টি-৪৪, টি-৪৫, টিএইচ-৫৭
পরিবহন বিমানসি-২, সি-১২, সি-২০, সি-৪০, সি-১৩০

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় গঠিত কন্টিনেন্টাল নেভি থেকে এই বাহিনীর উৎপত্তি। ১৭৭৫ সালের ১৩ অক্টোবর এই বাহিনী গঠন করা হয়। প্রথমে সেনাবাহিনীর সাথে একত্রিতভাবে শুরু হলেও স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালেই এটি সম্পূর্ণ পৃথক একটি বাহিনী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধান অনুসারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস এই বাহিনী নিয়ন্ত্রণ করে।[5]

একুশ শতকে এসে মার্কিন নৌবাহিনী, মার্কিন পররাষ্ট্র এবং প্রতিরক্ষা নীতির প্রয়োগ ও প্রভাব সম্প্রসারণে অন্যতম ভূমিকা পালন করে চলেছে। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে এই বাহিনী বড় ধরনের সৈন্য ও রসদ নিয়ে অবস্থান করছে, যার মধ্যে আছে পূর্ব এশিয়া, ভূমধ্যসাগরমধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন এলাকা। এটি মূলত একটি সামুদ্রিক নৌবাহিনী, যা শান্তিপূর্ণ সময়ে বিশ্বের উপকূলীয় অঞ্চলগুলোতে প্রদক্ষিণ করে। এছাড়াও কোনো আঞ্চলিক দুর্যোগ বা সঙ্কটাপন্ন অবস্থা মোকাবেলায়ও এই নৌবাহিনী সহায়তা প্রদান করে থাকে।

প্রশাসনিকভাবে ডিপার্টমেন্ট অফ দ্য নেভি বা মার্কিন নৌঅধিদপ্তর এই বাহিনী পরিচালনা করে। সেক্রেটারি অফ দ্য নেভি হচ্ছেন এই অধিদপ্তরের প্রধান। ডিপার্টমেন্ট অফ দ্য নেভি নিজেও ডিপার্টমেন্ট অফ ডিফেন্স বা প্রতিরক্ষা অধিদপ্তরের একটি শাখা। এটির প্রধান হচ্ছে সেক্রেটারি অফ ডিফেন্স বা প্রতিরক্ষা সচিব। ঐতিহ্যগতভাবে এই বাহিনীতে নিযুক্ত কর্মকর্তাদের সর্বোচ্চ পদবী হচ্ছে চিফ অফ নেভাল অপারেশন্স বা নৌপ্রধান। অ্যাডমিরাল গ্যারি রুগহেড হচ্ছেন বর্তমান নৌপ্রধান। এই বাহিনী থেকে বর্তমানে সর্বোচ্চ পদবীযুক্ত কর্মকর্তা হচ্ছেন অ্যাডমিরাল মাইকেল মুলেন। যদিও বর্তমানে তিনি মার্কিন নৌবাহিনীতে নন, বরং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ সামরিক পদ, চেয়ারম্যান অফ দ্য জয়েন্ট চিফস অফ স্টাফ হিসেবে কর্মরত।

আরো দেখুন

তথ্যসূত্র

  1. Precedence of the U.S. Navy and the Marine Corps ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১১ মার্চ ২০১০ তারিখে Department of the Navy -- Naval History & Heritage Command, 04 October 2009
  2. "Status of the Navy"। U.S. Navy। ৩০ আগস্ট ২০১০। ২১ ডিসেম্বর ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ আগস্ট ২০১০
  3. "America's 'Big Stick' Celebrates Navy's 234th Birthday"। ২০ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১১
  4. Gates, Robert M। "A Balanced Strategy: Reprogramming the Pentagon for a New Age"। Council On Foreign Relations। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০০৮
  5. "Constitution of the United States"। U.S. Government। সংগ্রহের তারিখ ১ ডিসেম্বর ২০০৮

বহিঃসংযোগ

This article is issued from Wikipedia. The text is licensed under Creative Commons - Attribution - Sharealike. Additional terms may apply for the media files.